সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Signs-&-Symptoms-of-Iron-Deficiency.jpg

জেনে রাখুন দেহের অতি প্রয়োজনীয় উপাদান আয়রনের অভাবজনিত লক্ষণ

সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে নারীরা আয়রনের অভাবে বেশি ভোগেন। তবে অবাক হওয়ার মত ব্যাপার যে বিশেষজ্ঞদের মতে, যে নারীরা শারীরিক ভাবে বেশি কর্মক্ষম তারাই এই সমস্যায় বেশি ভোগেন।

দেহের প্রতিরোধক ক্ষমতাকে শক্তিশালী করার জন্য বেশ কিছু ধাতু অনেক কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। সেই ধাতু গুলোর একটি হচ্ছে আয়রন যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

তবে কেউ যদি আয়রনের অভাবে ভোগেন তবে তা সহজে বোঝা যায় না। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে নারীরা আয়রনের অভাবে বেশি ভোগেন। তবে অবাক হওয়ার মত ব্যাপার যে বিশেষজ্ঞদের মতে, যে নারীরা শারীরিক ভাবে বেশি কর্মক্ষম তারাই এই সমস্যায় বেশি ভোগেন।

তাই আমাদের আগে জানা উচিত কেন আয়রন আমাদের দেহের জন্য প্রয়োজনীয়। হিমোগ্লোবিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে এই আয়রন। এটি ফুসফুস থেকে অক্সিজেন বহন করে নিয়ে এসে সারা দেহে ছড়িয়ে দেয়। এছাড়া আয়রনের অভাব থেকে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়।

সাধারণত বাড়ন্ত শিশুদের ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে তাদের দেহে আয়রনের শোষণ বাড়তে থাকে। তখন তাদের জন্য বেশি পরিমান আয়রনের প্রয়োজন হয় যা খাবার থেকে পূরন হয়না। এছাড়া যদি কারো অনেক রক্তক্ষয় হয় তাহলে দেহ থেকে আয়রনও বের হয়ে যায়। গর্ভবতী নারীদেরও অধিক পরিমান আয়রনের প্রয়োজন। তাই এসব ক্ষেত্রে আয়রনযুক্ত খাবার ছাড়াও আলাদা সাপ্লিমেন্ট দেয়া প্রয়োজন হয়ে পরে। তবে এই সব কিছুর আগে জানতে হবে আয়রনের অভাবের লক্ষণ গুলো কি কি।

আয়রনের অভাবে বেশ কিছু ধরনের লক্ষণ দেখা যায় যা অনেক সময় উপেক্ষা করা হয়। কখনো কি ভেবে দেখেছেন যে অত্যাধিক অলসতাও আয়রনের অভাবের কারন হতে পারে। যত তাড়াতাড়ি আয়রনের এর অভাবজনিত অবস্থা বোঝা যাবে তত তাড়াতাড়ি চিকিৎসা করা যাবে।

তাই এখানে আয়রনের অভাবজনিত ১০ টি লক্ষণ উল্লেখ করা হলো:

অবসন্নতা: দেহে আয়রনের অভাবের এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ। কারন আয়রন হচ্ছে সারা দেহে অক্সিজেন ছড়িয়ে দেয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি মাধ্যম যা দেহে শক্তি সরবরাহ করে। যদি কেউ আয়রনের অভাবে ভোগেন তাহলে সে অল্প কাজেই ক্লান্তিবোধ করবে, দুর্বল লাগবে এবং অবসন্ন হয়ে যাবে।

অল্পতেই হাঁপিয়ে উঠা: কেউ কেউ অল্প সিঁড়ি উঠা নামা করলে বা সামান্য কাজেই হাঁপিয়ে উঠে। এসব কিছু হয়ে থাকে দেহে অক্সিজেনের অনিয়মিত প্রবাহের কারনে যা আয়রনের অভাবের কারন হতে পারে। তাই এসব ক্ষেত্রে দেরি না করে ডাক্তারের কাছে যাওয়া প্রয়োজন এবং ফেরিটিন টেস্ট করানো উচিত।

বেশি রক্তপাত: নারীদের ক্ষেত্রে আয়রনের অভাব সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। কারন তাদের নিয়মিত রক্ত হারানোর সাথে সাথে আয়রনও দেহ থেকে বের হয়ে যায়। তাই যদি বেশি রক্ত দেহ থেকে বের হয়ে যায় তাহলে অবশ্যই একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ দেখানো উচিত।

পেশিতে অস্বাভাবিক টান পড়া: যদি কখনো খেয়াল করেন যে নিয়মিত ভাবে পেশিতে টান পড়ছে এটা যেকোনো কারনেই হতে পারে। হয়তো দেখা যায় সামান্য একটু শারীরিক ব্যায়াম করার ফলেও হচ্ছে। এটা আয়রনের অভাবে হতে পারে কারন আয়রন পেশিতে যেকোনো ধরনের ছোট খাটো ব্যাথা দূর করতে সাহায্য করে।

ত্বক ফ্যাঁকাসে হয়ে যাওয়া: ত্বক, ঠোটের ভেতরের অংশ এবং চোখের পাতার ভেতরের দিক যদি ফ্যাঁকাসে থাকে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত। হিমোগ্লোবিন এমন একটি প্রোটিন যা রক্তের লোহিত কণিকার পরিমান বাড়াতে সাহায্য করে। রক্তের মাঝে আয়রনের অভাব একজন মানুষকে দেখতে অস্বাভাবিক ফ্যাঁকাসে করে তোলে।

বাচ্চাদের কাদামাটি, চক বা বরফের প্রতি আকর্ষণ: লক্ষ্য করলে যদি দেখেন কোন বাচ্চার চক, কাগজ বা মাটি মুখে দেয়ার মত অস্বাভাবিক অভ্যাস হচ্ছে তাহলে বুঝতে হবে তার দেহে আয়রনের অভাব হচ্ছে। শুনতে একটু অবাক লাগলেও আয়রনের অভাবই বাচ্চাকে এই ধরনের অভ্যাসের দিকে নিয়ে যায়। 

মাথা ব্যাথা: আয়রনের অভাবজনিত ১০ টি লক্ষনের মাঝে এটি খুবই মারাত্মক। আয়রনের অভাবের ফলে মস্তিস্কে অক্সিজেন সরবরাহ বিঘ্নিত হয়। কোষ গুলো ক্ষতিগ্রস্থ হয়। মস্তিস্কের ধমনী গুলো স্ফীত হয়ে যায় যার ফলে মাথা ব্যাথার সৃষ্টি হয়।

উদ্বেগ বেড়ে যায়: মানসিক চাপ বিভিন্ন কারনেই হতে পারে। কিন্তু এই মানসিক অবস্থা বা উদ্বিগ্নতা নার্ভের উপর চাপ সৃষ্টি করে। তাই এসব ক্ষেত্রে দেরী না করে শরীরের আয়রনের মাত্রা নিরুপন করা জরুরি। আয়রনের অভাবে দেহে অক্সিজেনের অভাব হয় এবং হার্টে প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের অভাবে হার্ট বিট বেড়ে গিয়ে নার্ভাস সিস্টেমের উপর চাপ সৃষ্টি করে এবং উদ্বেগ বেড়ে যায়।

চুল পড়া: চুল পড়ার অনেক কারনই থাকতে পারে কিন্তু আয়রনের অভাব চুল পড়ার একটি বড় কারন। যখন দেহে আয়রনের তীব্র অভাব দেখা দেয় তখন দেহে নানা ধরনের গুরুতর সমস্যা ঘনীভূত হতে থাকে। এগুলোর একটির বহিঃপ্রকাশ ঘটে চুল পড়ার মাধ্যমে। অনেক সময় এতো বেশি চুল পড়ে যে মাথায় টাক হয়ে যায়।

কম কার্যকর থাইরয়েড হরমোন: আয়রনের আরো একটি অভাব জনিত লক্ষণ হলো দেহে আয়রনের অভাব হলে থাইরক্সিন হরমোনের নিঃসরণ কমে যায় এবং হাইপো থাইর‍য়ডিজম এর সৃষ্টি করে। যার ফলশ্রুতিতে দেখা যায় দেহের তাপমাত্রা কমে যায়, হঠাৎ ওজন বৃদ্ধি পায় বা কমে যায় ইত্যাদি।

তাই উপরোক্ত লক্ষণগুলো এক বা একাধিক কারো মাঝে দেখা গেলে অবশ্যই সচেতন হতে হবে এবং ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

 -
লেখক: জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ; এক্স ডায়েটিশিয়ান,পারসোনা হেল্‌থ; খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (স্নাতকোত্তর) (এমপিএইচ); মেলাক্কা সিটি, মালয়েশিয়া।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

থাইরয়েড-হরমোন, চুল-পড়া, মাথা-ব্যাথা, ফ্যাঁকাসে-ত্বক, ফেরিটিন-টেস্ট, অবসন্নতা, লক্ষণ, অভাবজনিত, আয়রন