সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

raw-cashew-nuts.jpg

গুনগত মান সুস্বাদু কাজুবাদামের হরেক রকম উপকারিতা

ওজন নিয়ন্ত্রণে ডায়েটেশিয়ানরা সাধারণত কাজুবাদাম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কারণ এতে কোলেস্টেরলের পরিমাণ ০%।

কাজুবাদামে আয়রন(লৌহ), সেলেনিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম এবং জিংক সমৃদ্ধ একটি সুস্বাদু বাদামগোত্রীয় ফল। অন্যান্য স্বাস্হ্যকর খাবারের মতো কাজুবাদামেরও অনেক ধরণের স্বাস্হ্যগত উপকারিতা আছে। তাহলে, ঝটপট দেখে নেয়া যাক সেগুলো কি কি।

হৃদস্বাস্থ্যে:
কাজুবাদামে প্রচুর পরিমাণে অসম্পৃক্ত ফ্যাটি এসিড এবং ওলেয়িক এসিড(একক অসম্পৃক্ত ফ্যাট) আছে যা হৃদযন্ত্রকে সুস্হ রাখতে সাহায্য করে। 

ডায়াবেটিসে: কাজুবাদামের একক অসম্পৃক্ত ফ্যাট ডায়াবেটিস রোগীদের দেহে ট্রাইগ্লিসারাইড লেভেল কমিয়ে দেয় ফলে সুগার এবং কোলেস্টেরল সংক্রান্ত সমস্যা বা জটিলতা থেকে দূরে রাখে। বিশেষ করে, টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বিস্ময়করভাবে হ্রাস করে।

এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট: এ্যান্টিঅক্সিডেন্টের একটি উৎকৃষ্ট উৎস হচ্ছে কাজুবাদাম। এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি দেহকে ফ্রি র‌্যাডিকেলমুক্ত রাখতে সাহায্য করে যা দেহকোষের ক্ষতি করে এবং ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

কপার: কাজুবাদামে উচ্চমাত্রায় কপার(তামা) আছে যা শক্তি উৎপাদনে সাহায্য করে। এছাড়াও, কপার ত্বক এবং চুলের রঙের জন্য প্রয়োজনীয় মেলানিন উৎপন্ন করে। বিভিন্ন শারীরবৃত্তিয় প্রক্রিয়া যেমন- ফ্রি র‌্যাডিকেল মুক্তকরণ, আয়রন উৎপাদন, হাড় মজবুতকরণ ইত্যাদিতে কপারের ভূমিকা ব্যাপক।

ম্যাগনেসিয়াম: কাজুবাদামে যথেষ্ট পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম আছে যা শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা যেমন, উচ্চ রক্তচাপ, মাংসপেশীর খিঁচুনী, মাইগ্রেন ইত্যাদির সাথে লড়াই করতে সাহায্য করে। এছাড়াও ম্যাগনেসিয়াম ক্যালসিয়ামের মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে যা পেশী এবং হাড়ের সুস্হতা নিশ্চিত করে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে: ওজন নিয়ন্ত্রণে ডায়েটেশিয়ানরা সাধারণত কাজুবাদাম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কারণ এতে কোলেস্টেরলের পরিমাণ ০%।

পিত্তথলির পাথর রোধে: প্রতিদিন কিছু পরিমাণে কাজুবাদাম খাওয়ার অভ্যাস পিত্তথলিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে দেয়।

দাঁতের সুরক্ষায়: দাঁতের ক্ষয়, মাড়ির সমস্যা, ব্রণ, যক্ষ্মা ইত্যাদির জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসের মাধ্যমে কাজুবাদাম দাঁত, মাড়ি ও মুখের অন্যান্য অংশকে সুস্হ রাখে।

যদিও দামের দিক থেকে বিচার করলে কাজুবাদাম একটু দামী, কিন্তু জীবন তার চেয়েও বেশি দামী। তাই আসুন, জীবনের কথা ভেবে, দেহকে সুস্হ সবল রাখতে আমরা এই স্বাস্হ্যকর ফলটি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলি।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

কাজু-বাদাম, উপকারীতা, ওজন, ডায়বেটিস, দাঁতের-সুরক্ষা